শিরোনামঃ

স্ত্রীর নগ্ন ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ায় তালাকপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেপ্তার


স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ীতে সতীনের সংসার করতে না চাওয়ায় তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর নগ্ন ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার অপরাধে জুয়েল শেখ (৩৫) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। সে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মাধব লক্ষীকোল গ্রামের আক্কাছ আলীর ছেলে।
বুধবার দুপুর আড়াই টার সময় তাকে নিজবাড়ী থেকে গ্রেপ্তার করে। আদালতে সোপর্দ করলে স্বেচ্ছায় আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।
তালাকপ্রাপ্ত ওই গৃহবধু (২৫) বলেন, জুয়েল শেখ (৩৫) সাথে গত ৬ মাস আগে বিবাহ হয়। বিবাহের সময় জানতেন না তার ঘরে স্ত্রী ছিল। বিষয়টি জানার পর থেকেই তাকে ছেড়ে চলে আসতে চান। কিন্তু দাম্পত্য জীবন চলা কালে কৌশলে অজ্ঞাতসারে শারীরিক সম্পর্কের নগ্ন স্থির চিত্র এবং ভিডিও চিত্র ধারন করে মোবাইলে সংরক্ষন করে রাখে। তিনি সতীনের ঘর করবেন না বিধায় গত ৭ জানুয়ারী তালাক প্রদান করেন।
তিনি বলেন, তালাক দেওয়ার পর থেকে তার সাথে সংসার করার জন্য নানাভাবে হুমকি ধামকি দেয়। তাতে রাজি না হওয়ায় তার “শেষ কথা” নামক ইমো আইডি দিয়ে কয়েকজনকে ধারন করা শারীরিক সম্পর্কের নগ্ন স্থির চিত্র এবং ভিডিও চিত্র ইমোতে পাঠায়। গত ৯ মার্চ বিকেল সাড়ে ৫ টার সময় নিজ বসত বাড়ীতে অবস্থানকালে তাকে ফোন করে জানায় তার নগ্ন স্থির চিত্র এবং ভিডিও চিত্র (যাতে ইমুতে সেক্স করি এটা ইমো নাম্বার যারা যারা সেক্স করতে চান এ নাম্বারে ফোন দিবেন) লিখে পাঠিয়েছেন।
তিনি আরও বলেন, বিষয়টি জানতে পেরে জুয়েল শেখকে ফোন করে বলি তুমি এগুলো বিভিন্ন মানুষকে দিচ্ছো কেন এগুলো আর কাউকে দিও না। এ কথা শুনে আমাকে বলে “তুমি যদি আমার সাথে সংসার না করো তাহলে তোমার নগ্ন স্থির চিত্র এবং ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দিব”। পরে জানতে পারি আরো অনেককেই নগ্ন স্থির চিত্র এবং ভিডিও চিত্র ইমো এবং মেসেঞ্জারে পাঠিয়েছেন। পরে মামলা দায়ের করি।
রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিসার ইনচার্জ মোঃ মনিরুজ্জামান খান বলেন, বুধবার দুপুর আড়াই টার সময় রাজবাড়ী সদর থানার পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রন আইনের মামলা দায়ের করে। ওই মামলার প্রেক্ষিতে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার এসআই মোঃ হাসানুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম রাজবাড়ী সদর থানার মাধব লক্ষীকোল বসত বাড়ী থেকে জুয়েল শেখকে তার পর্ণোগ্রাফি কাজে ব্যবহৃত এ্যান্ড্রোয়েড মোবাইল ফোনসহ গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ী আদালতে প্রেরণ করা হয়। ধৃত আসামী ঘটনার সহিত জড়িত আছে মর্মে স্বীকার করে স্বেচ্ছায় আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

অন্যান্য খবর পড়ুন